সৌদি আরবে মহান বিজয় দিবস উদযাপন

সৌদি আরবে যথাযথ মর্যাদায় মহান বিজয় দিবস ২০১৯ উদযাপিত হয়েছে।

1

সিটিএনবি ডেস্কঃ রিয়াদে বাংলাদেশ দূতাবাস ও জেদ্দায় বাংলাদেশ কনস্যুলেট, জাতীয় ও ব্রিটিশ কারিকুলামে পরিচালিত বাংলাদেশ ইন্টারন্যাশনাল স্কুল অ্যান্ড কলেজ রিয়াদ ও জেদ্দায় বিভিন্ন কর্মসূচির মধ্য দিয়ে দিবসটি উদযাপন করেছে।

সূর্যোদয়ের সাথে সাথে রাষ্ট্রদূত গোলাম মসীহ দূতাবাস প্রাঙ্গণে জাতীয় পতাকা উত্তলনের মধ্য দিয়ে দিবসটির কর্মসূচি সূচনা করেন। পরে শহীদদের স্মরণে অস্থায়ী স্মৃতিসৌধে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান রাষ্ট্রদূত, দূতাবাস ও কনস্যুলেট কর্মকর্তা-কর্মচারী এবং বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার প্রবাসী বাংলাদেশিরা। দিবসটি উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী ও পররাষ্ট্রমন্ত্রীর এবং পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী প্রদত্তবাণী পাঠ করে শুনানো হয়।

অনুষ্ঠান শেষে দেশ ও জাতির মঙ্গল কামনা করে বিশেষ মোনাজাত করা হয়। মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা অনুষ্ঠানে রাষ্ট্রদূত গোলাম মসীহ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আহ্বানে নয় মাসের সশস্ত্র সংগ্রামের মাধ্যমে আমাদের মহান স্বাধীনতা অর্জিত হয়েছে। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা বাস্তবায়নে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গতিশীল নেতৃত্বের কারণে পৃথিবীর বুকে বাংলাদেশ আজ উন্নয়নের রোল মডেলে পরিণত হয়েছে বলে মন্তব্য করেন।

দূতাবাসের কার্যালয় প্রধান ড. ফরিদ উদ্দিন আহমদের উপস্থাপনায় আলোচনা অনুষ্ঠানে দূতাবাসের মিশন উপ-প্রধান মো. নজরুল ইসলাম, মিনিস্টার আনিসুল হক, ডিফেন্স অ্যাটাচি ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. সাঈদ সিদ্দিকীসহ রিয়াদে বাংলাদেশি কমিউনিটির বিভিন্ন সংগঠনের নেতৃবৃন্দ মহান বিজয় দিবসের তাৎপর্য তুলে ধরে বক্তব্য প্রদান করেন।

এছাড়া জেদ্দায় বাংলাদেশ কনস্যুলেট জেনারেল সূর্যোদয়ের সঙ্গে সঙ্গে কনস্যুলেট প্রাঙ্গণে আনুষ্ঠানিক জাতীয় পতাকা উত্তোলন করেন কন্সাল জেনারেল ফয়সাল আহমেদ। পরে প্রবাসীদের উদ্দেশে কন্সাল জেনারেল বলেন: বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গতিশীল নেতৃত্বে ক্ষুধা দারিদ্র মুক্ত বাংলাদেশ আজ বিশ্ব দরবারে উন্নয়নের রোল মডেল ।

প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত ভিশন ২০২১ এবং ২০৪১ বাস্তবায়নে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করে দেশের অর্থনীতিকে আরও শক্তিশালী করতে প্রবাসীদের বৈধ পথে রেমিট্যান্স প্রেরণ এবং সাউদি আরবের আইন মেনে চলতে প্রবাসীদের প্রতি আহবান জানান তিনি।

জেদ্দা কনস্যুলেটের প্রথম সচিব (শিক্ষা ও শ্রম) কাজী সালাহ উদ্দিনের উপস্থাপনায় দিবসটি উপলক্ষে প্রদত্ত রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী ও পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বাণী পাঠ করেন শ্রম কল্যাণ কাউন্সিলর আমিনুল ইসলাম, ওআইসির কর্মকর্তা সালাহ উদ্দিন মাহমুদ, কাউন্সিলর মুজিবুর রহমান এবং প্রথম সচিব (ভিসা, পাসপোর্ট) মোহাম্মদ কামরুজ্জামান।

কনস্যুলেটের কর্মসূচির মধ্যে ছিলো কোরআন থেকে তেলাওয়াত, বাণী, বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সংবর্ধনা, বীর মুক্তিযোদ্ধা মঈনুদ্দিন ভূইয়া কতৃক রণাঙ্গণের স্মৃতিচারণ, অস্থায়ী স্মৃতিসৌধে শ্রদ্ধা নিবেদন।

অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় পর্বে ৫২ থেকে ৭১ চেতনার বাংলাদেশ শীর্ষক লেজার শো এবং মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। দিবসটি উপলক্ষে কনস্যুলেট ভবনে করা হয় বর্ণিল আলোকসজ্জা। এছাড়া জেদ্দা এবং রিয়াদে অবস্থিত স্কুলগুলোতে জাতীয় পতাকা উত্তোলন বিজয় দিবসের তাৎপর্য তুলে ধরে আলোচনা সভা ,ইন্টারন্যাশনাল স্কুল”, জেদ্দার বাংলা ও ইংরেজী শাখার ছাত্র-ছাত্রীদের অংশগ্রহণে অনুষ্ঠিত “বিজয়ফুল” তৈরি, মহান বিজয় দিবস উপলক্ষ্যে রচনা প্রতিযোগিতা ও স্বরচিত কবিতা-ছড়া প্রতিযোগীতায় বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করা সহ মুক্তিযুদ্ধের প্রামাণ্য চিত্র প্রদর্শনের মাধ্যমে উদযাপন করা হয় মহান বিজয় দিবস।

1 COMMENT